December 3, 2020 7:43 am

জন্মদিনে জয়া আহসান নিজের প্রকৃত বয়স জানালেন!

কখনো ‘ব্যাচেলর’র শায়লা, কখনো ‘গেরিলা’র বিলকিস বানু, আবার কখনো হুমায়ূন আহমেদের ‘দেবী’র রাণু। একের পর এক গল্পের চরিত্রে নিজেকে ভেঙে নতুন করে গড়েছেন ভার্সাটাইল অভিনেত্রী জয়া আহসান।

নন্দিত এই অভিনেত্রী জীবনের আরেকটি বসন্ত পেরিয়ে পা রাখলেন নতুন বছরে। বুধবার (১ জুলাই) তার জন্মদিন। বিশেষ এই দিনে সহকর্মী, বন্ধু ও ভক্তদের শুভেচ্ছায় ভাসছেন জয়া আহসান। রাত থেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবিসহ তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন অনেকে।

নন্দিত অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা, পরিচালক আকরাম খান, অভিনেতা শতাব্দী ওয়াদুদ, অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা, শবনম ফারিয়াসহ নাটক ও ইন্ডাস্ট্রির অনেকে ফেসবুকে জয়া আহসানকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। অসংখ্য ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষী জন্মদিনে জয়াকে ভালোবাসা জানাচ্ছেন।

জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসানের বয়স নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি। শোবিজে তার বয়স জানার জন্য অনেক সময় আলোচনাও হয়েছে। বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার বয়স দেখানো হয়েছে  ৪৪, কোথাও আবার সেটা ৪৬ বলা হয়েছে। এবার ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজারকে জয়া আহসান তার বয়সের কথা জানালেন।

জয়া আহসান

জয়া আহসান জানান, তার বয়স ৩৭ বছরের একদিনও বেশি নয়। উইকিপিডিয়ায় তাকে নিয়ে যেসব তথ্য দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে অনেক তথ্যই ভুল দেওয়া আছে। প্রকৃত সত্য হলো, ৪৬ বছর আগে আমার বাবা-মায়ের বিয়ে তো দূরের কথা, দেখাও হয়নি।

এই বয়সেও জয়া যেভাবে নিজের শরীর ধরে রেখেছেন তা সচরাচর দেখা যায় না। ফলে ১৮ বছরের তরুণীদের চেয়েও জয়াকে বেশি আকর্ষণীয় মনে হয়। সাধারণত নারী তারকাদের উত্থান হয় ২০ এর কোঠায়। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে তাদের প্রোমোশন হয়েছে তন্বী কিশোরী থেকে মা-মাসির চরিত্রে। তবে জয়া ব্যতিক্রম!

দুই বাংলায় সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন জয়া আহসান। নিয়মিত ঢাকা-কলকাতা তার যাতায়াত। তবে করোনার মধ্যে শুরু থেকে ঢাকাতেই আছেন তিনি। এমন পরিস্থিতিতে এবারের জন্মদিনে তেমন কোনো আয়োজন রাখেননি এই অভিনেত্রী।

জয়া আহসান জন্ম গোপালগঞ্জে। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা এ এস মাসউদ এবং মা রেহানা মাসউদ ছিলেন একজন শিক্ষিকা। তারা দুই বোন এক ভাই। অভিনয় শুরুর আগে জয়া নাচ ও গানের প্রতি আকৃষ্ট ছিলেন।

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে ছোটপর্দা দাপিয়ে বেড়িয়েছেন জয়া আহসান। নাটক ও বিজ্ঞাপনের মডেল হয়ে সবার নজরে কাড়েন। ২০০৪ সালে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত ‘ব্যাচেলর’ সিনেমার মধ্য দিয়ে সিনেমায় যাত্রা শুরু তার। এরপর নুরুল আলম আতিকের ‘ডুবসাঁতার’, নাসির উদ্দীন ইউসুফের ‘গেরিলা’, রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘চোরাবালি’ ও অনিমেষ আইচ পরিচালিত ‘জিরো ডিগ্রি’ দিয়ে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যান তিনি। 

‘গেরিলা’, ‘চোরাবালি’, ‘জিরো ডিগ্রি’ ও ‘দেবী’র জন্য মোট চারবার বাংলাদেশের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার পেয়েছেন জয়া আহসান। 

বাংলাদেশের সিনেমা ছাড়াও কলকাতার বাংলা সিনেমায় জয়া বেশ জনপ্রিয়। তার অভিনীত ভারতীয় সিনেমার মধ্যে ‘আবর্ত’, ‘বিসর্জন’, ‘রাজকাহিনী’, ‘ঈগলের চোখ’, ‘ক্রিসক্রস’ ও ‘কণ্ঠ’ উল্লেখযোগ্য।  

মাহমুদ দিদার পরিচালিত ‘বিউটি সার্কাস’সহ জয়া অভিনীত বেশ কয়েকটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই সম্পর্কিত আরো খবর...